STORIES for CHILDREN by Sister Farida

(www.wol-children.net)

Search in "Bengali":

Home -- Bengali -- Perform a PLAY -- 145 (If I had 1000 lives 6)

Previous Piece -- Next Piece

নাটক -- আপনার বন্ধুদের জন্য সঞ্চালন করুন !!
শিশুদের সঞ্চালন জন্য না

145. যদি হাজার বৎসর জীবন পেতাম-৬


জাহাজ ঘাটে ভিরলো। হাডসন টেলর বড়ই রুগ্ন, দেশের মাটিতে পা রাখলেন। ইংল্যান্ডে যে ডাক্তার তার চিকিৎসা করতেন তিনি তার বিষয়ে অনেকটা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়লেন।

ডাক্তারঃ ‘মিস্টার টেলর, আর কখনো চীনে আপনি ফিরে যেতে পারেন না।’

হাডসন টেলরঃ ‘খোদা যদি আমাকে সুস্থ করতে চান তবে আমি সুস্থ হবো।’

চীন দেশের একটা বিশাল মানচিত্র তিনি তাঁর দেয়ালে টাঙ্গিয়ে রেখে দিলেন। হাডসন এর পানে তাকিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়তেন। তিনি লক্ষ কোটি চীন জাতির কথা চিন্তা করতেন, তারা আজ পর্যন্ত মসিহের প্রেমের বিষয় আদৌ জানতে পারে নি।মাঝে মধ্যে তিনি এ গল্পটি বলতেন।

হাডসনঃ ‘সুংকিয়েন ফুতে জাহাজে ভ্রমন করছি, পিতর আমাদের সাথে ছিলেন। আমরা উভয়ে মসিহের বিষয়ে আলোচনা করছিলাম। আমি আমার কক্ষে ফিরে গেলাম। আমি সহসা শুনতে পেলাম কেউ যেন কান্না করছে, সাথে সাথে পানিতে ঝাপ দিয়ে পড়ার শব্দ হলো। জাহাজের পাটাতন থেকে পিতর পড়ে গেছে। আমি পানিতে ঝাপ দিলাম, কিন্তু আমি তাকে আর পেলাম না। বাচাও! বাচাও! জেলেদের কছে আকুতি জানালাম। কিন্তু তারা জানালো: আমাদের হাতে সময় নেই। আমরা মাছ ধরছি। তুমি কি আমাদের মূল্য দিবে। আমি তাদের কাছে প্রতিজ্ঞা করলাম যে আমি মূল্য দেব। আমার কাছে তাদের আসতে ও সাহায্য করতে বেশ ক্ষানিকটা সময় লাগলো। তারা পানি থেকে পিতরকে তুলে উঠালো। আমি তাকে জীবন্ত করে তুলতে চেষ্টা করলাম। কিন্তু ততক্ষনে সবকিছু শেষ। পিতর মারা গেল। তাকে বাঁচানো যেতো যদি জেলেরা অন্যমনষ্ক না হতো।’

কতই ভয়ানক!

হাডসন প্রচেষ্ঠা চালিয়েছিলেন লোকজন যেন নাজাত লাভ করে। বিশেষ করে তাদের পাপের হাত থেকে বাঁচতে পারে। কিন্তু বর্তমানে তিনি বড়ই অসুস্ত।

হাডসন টেলরঃ ‘প্রভু মসিহ, দয়া করে পাঁচ জন মিশনারে চীনে প্রেরন করো।যেন অনেক সংখ্যক লোক তোমাকে জানতে পারে আর তোমার উপর ঈমান স্থাপন করে নাজাত লাভ করতে পারে।’

তার প্রর্থনার জবাব তিনি পেয়েছিলেন। কিন্তু লক্ষকোটি জনগোষ্ঠির জন্য মাত্র পাঁচ জন মিশনারি অতিব নগন্য নয় কি? হাডসন টেলার প্রার্থনা করলেন ২৪ জনের জন্য, তারপর ১০০ জনের জন্য তারপর ১০০০ জনের জন্য। খোদা তার প্রার্থনার ইতি বাচক জবাব দিলেন।

আর এটাই হাডসন টেলরের কাছ থেকে আমি শিখেছি; মসিহের কাছে খুলে বলো তোমার যা কিছু প্রয়োজন রয়েছে সে বিষয়ে, আর বিশ্বাস করা যে ও সকল তিনি তোমাকে দিবেন। মসিহ আনন্দের সাথে আমাদের চাহিদা পূরন করে থাকেন। তিনি আমাদের প্রার্থনা শ্রবণ করেন।

হাডসন পেটলর পুনরায় সুস্থ হয়ে ওঠলেন। আর নতুন মিশনারি নিয়ে তিনি চীনে গেলেন।

১ম মাহিলাঃ ‘তোমরা সকলে খ্যাপা এখানে বসো।’

২য় মহিলাঃ ‘তুমি এ পদ্ধতিতে প্রচুর টাকা উপার্জন করতে পারবে। চীনে গিয়ে তুমি ক্ষুধা কাতর হয়ে পরবে। কেননা দ্রুত তুমি ভুলে যাবে।’

হাটেঃ ‘ভুলে যাওয়া? খোদা তাঁর সন্তানদের কখোনই ভুলে যান না।’

খোদা তার কথা কখোনই ভুলে যান নি।

হাটেঃ ‘যদি আমার ১০০০ জন জীবন্ত ব্যাক্তি থাকতো, তবে হাজার বার আমি মিশনারি হতে পারতাম।’

তুমিও কি মিশনারি হতে চাও? আমি প্রতিঙ্গা করছি: তুমি কখোনো কোটিপতি হবে না, আর তোমার সমস্যাও থাকবে না। কিন্তু কোনো ভাবেই না; মসীহ আমাদের কাছ থেকে যাকিছু প্রত্যাশা করেন তার ব্যাতিক্রম কোনো কাজই করা উত্তম হতে পারে না, সর্বপরিস্থিতিতে তার উপর নির্ভর করা চলে।


লোকবলঃ ভাষ্যকার, হাডসনটেলর, ডাক্তার, ১ম ও ২য় মহিলা

© Copyright: CEF Germany

www.WoL-Children.net

Page last modified on November 18, 2019, at 12:43 PM | powered by PmWiki (pmwiki-2.2.109)